করোনার জের, দক্ষিণ দিনাজপুরে বনদপ্তরের সমস্ত পিকনিক স্পটে বিশেষ বিধিনিষেধ প্রশাসনের

পিন্টু কুন্ডু , বালুরঘাট, ২৯ নভেম্বর: করোনা সংক্রমনের জেরে দক্ষিন দিনাজপুরের প্রায় সমস্ত পিকনিক স্পটেই বিশেষ বিধিনিষেধ আরোপ বনদপ্তরের। সচেতনতা মূলক প্রচারের পাশাপাশি পিকনিক স্পটগুলিতে প্রবেশের ক্ষেত্রেও বেশ কড়া নিয়ম জারি করছে বনদপ্তর। কোভিড সতর্কতা নিয়ে বিশেষ নির্দেশ জেলায় পৌঁছতেই তা তড়িঘড়ি কার্যকরী করতে উদ্যোগী হয়েছে বনদপ্তর। ডিসেম্বরের শুরু থেকেই এই প্রচার নিয়ে পিকনিক স্পটগুলিতে হাজির হতে চলেছে বনদপ্তর। সাধারণ মানুষকে সচেতনতার বার্তা দিতে প্রতিটি পিকনিক স্পটে একাধিক ব্যানার ও ফ্লেক্স লাগানোরও উদ্যোগ নিয়েছে তারা।

শীতের মরশুম শুরু হতেই পিকনিকের আমেজে ভরে ওঠে যেন গোটা দক্ষিন দিনাজপুরের বিভিন্ন প্রান্ত। বিশেষ করে ছুটির দিনগুলিতে যেন এর বিশেষ মাত্রা জোগায়। ডিসেম্বরের শুরু থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন পিকনিক স্পটগুলিতে ভিড় জমান জেলা ও পাশ্ববর্তী জেলার প্রচুর মানুষ। যেসব পিকনিক স্পটগুলির মধ্যে বালুরঘাটের দোগাছি ফরেস্ট, পাহাড়পুর সহ গুরাইল, গোরাহার, চকগঙ্গাপ্রসাদ এবং আয়রা ফরেস্ট জেলার অন্যতম পিকনিক স্পট হিসাবে প্রসিদ্ধ। করোনা সংক্রমণ রুখতে এবারে বনদপ্তরের অধীনস্থ এইসব পিকনিক স্পটগুলিতে বনভোজনকারীদের জন্য কড়া ব্যবস্থা নিতে চলেছে প্রশাসন। সাধারণ মানুষকে আগে থেকেই সচেতন করতে একাধিক উদ্যোগ গ্রহন করেছে বনদপ্তর। প্রতিটি পিকনিক স্পটের সামনে হোর্ডিং ও ফ্লেক্স লাগিয়ে সচেতনতার বার্তাও দেওয়া হয়েছে তাদের তরফে। যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে এক একটি পিকনিক দলে দশ জনের বেশি কাউকেই প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। নিজেদের মধ্যে দূরত্ব বজায় রেখে খাওয়া-দাওয়া, নাচ গানের আনন্দ নিতে পারবেন সাধারণ মানুষ। মাস্ক ও স্যানিটাইজার নিয়ে প্রবেশ একপ্রকার বাধ্যতামূলক থাকছে।

বালুরঘাট বনদপ্তরের আধিকারিক আব্দুর রেজ্জাক জানিয়েছেন, মোবাইল ভ্যান করে পিকনিক স্পটগুলিতে নজরদারি চালানো হবে। করোনা রুখতে সরকারি বিধি নিষেধ সকলকেই মেনে চলতে হবে। বনদপ্তর ফ্লেক্সের মাধ্যমে পিকনিকস্পট গুলিতে সচেতনতা মূলক প্রচার চালাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *