বাংলার সুপার সিএম অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রধান টার্গেট ফিরহাদ হাকিম, অপেক্ষা করছেন তার জেলে যাওয়ার, দাবি সুকান্তর

আমাদের ভারত, ১৪ সেপ্টেম্বর: আজ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজ্যের সুপার সিএম বলে আক্রমণ শানালেন সুকান্ত মজুমদার। একই সঙ্গে তাঁর দাবি, শুভেন্দু অধিকারী নন, ফিরহাদ হাকিমই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধান টার্গেট। কবে ফিরহাদ হাকিম জেলে ঢুকবেন সেই অপেক্ষাতেই বসে রয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক।

ন্যাশনাল লাইব্রেরিতে সাংগঠনিক বৈঠকে উপস্থিত হন সুকান্ত। সেখানেই তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দাবি করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। অভিষেককে একহাত নিয়ে সুকান্ত বলেন, “অভিষেক আসলে চাইছেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, কাকলি ঘোষ দস্তিদারদের মতো পুরনো তৃণমূল নেতাদের ধীরে ধীরে অস্তাচলে পাঠাতে। তার প্রধান টার্গেট ফিরহাদ হাকিম, উনি কবে জেলে ঢুকবেন সেই অপেক্ষা করছেন অভিষেক। সবাইকে সরিয়ে নিজের চোরের সাম্রাজ্য সাজিয়ে বসার অপেক্ষা করছেন দিদির ভাইপো বলে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন সুকান্ত।

তাঁর আরও দাবি, বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারী নন, বরং অভিষেকের টার্গেট ফিরহাদ। তাঁর মতে, “মুখ্যমন্ত্রী এই রাজ্য চালাতে পারছেন না, কারণ তার মাথার উপর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় রয়েছে। তিনি বর্তমানে বাংলার সুপার পিএম।”

বুধবার ইডি দপ্তর থেকে বেরিয়ে অভিষেক বলেছিলেন, এভাবে তার এবং ইডির দু’পক্ষের সময় নষ্ট হচ্ছে। এর পাল্টায় বঙ্গ বিজেপির সভাপতি বলেন, “কিসের সময় নষ্ট হচ্ছে ওনার? তোলাবাজি টাকা গোনা ছাড়া ওনার আর কোনো কাজ আছে কি?”

সুকান্ত আরো বলেন, আদালত বারবার বলেছে যে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে কেন জেরা করা হচ্ছে না? এর থেকে প্রমাণিত, যা যা ডকুমেন্ট রয়েছে তাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তথ্য-প্রমাণ রয়েছে। খবর আছে লিপস এন্ড বাউন্স থেকে টাকা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অ্যাকাউন্টে গিয়েছে। এমনকি তিনি এবং মুখ্যমন্ত্রী দুজনেই সম্প্রতি এই কোম্পানিটি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সেটা স্বীকার করে নিয়েছেন।

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রীর স্পেন সফরের সঙ্গী হওয়ার প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে রাজ্য বিজেপির সভাপতি বলেন, সৌরভ গাঙ্গুলি একজন ক্রীড়াবিদ। তাকে মুখ্যমন্ত্রী ডেকেছেন তাই তিনি গিয়েছেন। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী এবং সৌরভ গাঙ্গুলি দুজনেই জানেন, “যে কুছ হোনে বালা নেহি। তারপর দুজনেই গান গাইবেন, “তোমার দেখা নাই রে তোমার দেখা নাই।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *